Facebook Google Plus Twiter YouTube

‘ডিজিটাল নর্থ-ইস্ট- ২০২০’ ভিশন ডকুমেন্ট-জীবনে রূপান্তর ও ক্ষমতায়নের জন্য রূপরেখা প্রনয়ণ করবে

প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো

১১ আগস্ট গুয়াহাটিতে উত্তরপূর্বের  বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রীর উপস্থিতিতে ‘ডিজিটাল নর্থইস্ট-২০২০ ভিশন ডকুমেন্ট’ প্রকাশ করলেন কেন্দ্রীয় তথ্য প্রযুক্তি, আইন ও বিচার বিভাগীয় মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ। এই ভিশন ডকুমেন্ট সরকারের ডিজিটাল ইন্ডিয়া প্রোগ্রামের অধীনে বিভিন্ন উদ্যোগে গতি আনতে ও উত্তর পূর্বাঞ্চলকে ডিজিটালে রূপান্তরের ক্ষেত্রে একটি দিকনির্দেশক হিসাবে কাজ করবে।

'ভিশন ডকুমেন্ট ডিজিটাল নর্থ ইস্ট-২০২২' এর লক্ষ্য হলো বিচ্ছিন্ন হয়ে থাকা সমস্ত ডিজিটাল প্রচেষ্টাকে পুনর্গঠন,পুনর্মূল্যায়ন ও দ্রুত কার্যকর ব্যবস্থাকে সামঞ্জস্যকরণের ভিত্তিতে সমন্বিত করে তোলা, যার মাধ্যমে ডিজিটাল ইন্ডিয়া প্রোগ্রামকে আরো জোরদার করে তোলা সম্ভব হবে। ডিজিটাল নর্থ ইস্ট এর এই ভিশন ডকুমেন্ট সুনির্দিষ্টভাবে প্রত্যেকটি প্রকল্প রূপায়ণের ক্ষেত্রে  একটা ভিত্তি হবে এবং উত্তর পূর্বাঞ্চলের সাধারণ মানুষের জীবনে রূপান্তর ও ক্ষমতায়নের জন্য রূপরেখা প্রনয়ণ করবে। এটা মনে করা হচ্ছে যে, ভারতকে ট্রিলিয়ন ডলারের ডিজিটাল সম্ভাবনাময় রাষ্ট্রহিসাবে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে ডিজিটাল নর্থ ইস্ট উত্তর পূর্বের গুরুত্তপুর্ন অংশীদার হয়ে উঠতে সক্ষম হবে ।

ভারতের ডিজিটাল রূপান্তর হলো প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির অধীনস্থ একটি উন্নয়ন যা সহজমূল্যের, ব্যাপক ও ক্ষমতাশালী। দেশের আর্থ-সামাজিক ক্ষেত্রের ডিজিটাইজেশনের রূপান্তরের যাত্রায়, দেশের উত্তর পূর্ব অঞ্চলের (এনইআর) ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। প্রতিটি রাজ্যের বৈশিষ্ট নির্ণিত হয় তার নিজস্ব জঠিল সমস্যা নিরসনে মনোযোগ আকর্ষণের মাধ্যমে। এরই প্রেক্ষাপটে সমস্যা সমাধানের জন্য লক্ষ্য তুলে ধরতে ভারত সরকার চালু করছে 'ডিজিটাল নর্থ ইস্ট -২০২২', যা গত ৩০ জুলাই ২০১৭ ইং গুয়াহাটিতে  ঘোষণা করেছিলেন কেন্দ্রীয় বৈদ্যুতিন, তথ্য ও প্রযুক্তি এবং আইন ও বিচার মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ।

'ডিজিটাল নর্থ ইস্ট -২০২২' তৈরির লক্ষ্য ও দিকনির্দেশিকা তৈরী করতে ভারত সরকারের বৈদ্যুতিন ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের (এমইআইটিওয়াই) অধীনে সেপ্টেম্বর ২০১৭তে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছিল। এই কমিটি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, বিভিন্ন দপ্তর, উত্তর পূর্বাঞ্চলের রাজ্যগুলির সরকার, মন্ত্রকের অধীনস্থ বিভিন্ন সংস্থা, শিক্ষাবিদ, এনজিও, বিশেষজ্ঞ সহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সাথে একাধিক পরামর্শমূলক বৈঠক করে, যারা এই অঞ্চলের উন্নয়নের সাথে যুক্ত রয়েছেন।

এই ভিশন ডকুমেন্ট-এ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে- কিভাবে উত্তর পূর্বের মানুষের জীবনযাত্রা পরিবর্তনে ডিজিটাল টেকনোলজিকে বেশি লাভদায়ক করে তোলা যায়, জীবনযাত্রার সহজ উপায় এবং স্থায়ী ও সংহত উন্নয়ন নিশ্চিত হয়, যাতে উত্তর-পূর্ব ভারতের প্রত্যেক নাগরিকের কাছে ডিজিটালাইজেশনের সুবিধা নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়।

ডিজিটাল নর্থ ইস্ট -২০২২ এর রোডম্যাপ কার্যকর করা হবে ভারত সরকারের বাজেট বরাদ্ধ থেকে। এর সঙ্গে যুক্ত থাকবে বৈদ্যুতিন ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রক, তার যোগাযোগ মন্ত্রক ও ডেভেলপমেন্ট অফ নর্থ ইস্টার্ন রিজিওন।

ডিজিটাল ইন্ডিয়ার সফলতা নির্ভর করে ডিজিটাল নর্থ ইস্ট এর সাফল্যের উপর। ঠিক হয়েছে, 'ডিজিটাল নর্থ ইস্ট -২০২২' কার্যকর করবে ভারত সরকার ও উত্তর পূর্বের সরকারসমূহ। আর এই প্রয়াসে সমন্বয়ের দায়িত্বে থাকবে বৈদ্যুতিন ও তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রক, যাতে করে এই প্রক্রিয়ার মাধ্যমে উত্তর পূর্বাঞ্চলের মানুষকে ডিজিটাল ও ক্ষমতায়নে সংযুক্ত করা যায়।

ভারত সরকারের ডিজিটাল ইন্ডিয়া প্রোগ্রামের অংশ হিসাবে সমস্ত নাগরিকদের ডিজিটাল পরিকাঠামোর সুযোগ দিতে, ডিজিটাল পরিষেবা ও ডিজিটাল সংযুক্তিকরণে উত্তর পূর্ব সহ সারা দেশে বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এরমধ্যে উত্তরপূর্বে রয়েছে ' ইন্টার এলিয়া, স্টেট পোর্টাল, স্টেট ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্ক (এসডব্লিউএএন), কমন সার্ভিস সেন্টার, ন্যাশনাল নলেজ নেটওয়ার্ক (এনকেএন), এবং ই-ডিস্ট্রিক্ট। বেশ কিছু মেঘ সংক্রান্ত এপ্লিকেশন, ই-কোর্ট , ই-বাহন, ই-সারথী, ই-হসপিটাল,  টেলি হেলথ, টেলি এডুকেশন এবং এসএমএস ভিত্তিক কৃষি পরিষেবা ইত্যাদিও কার্যকর রয়েছে।

মিশনের উদ্দেশ্য

- অপটিক্যাল ফাইবার ও বিকল্প প্রযুক্তির মাধ্যমে সমস্ত গ্রাম পঞ্চায়েত ও স্থানীয় সংস্থাগুলিকে উচ্চ গতিসম্পন্ন ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট পরিষেবার সাথে যুক্ত করা।

- উত্তর পূর্বের এই সমস্ত গ্রামকে মোবাইল সংযোগে যুক্ত করা যেখানে এখনো মোবাইল পরিষেবা নেই।

-  উত্তর পূর্বের জন্য গুয়াহাটিতে বিপর্যয় মোকাবিলা কেন্দ্র সমেত একটি ডিজাস্টার হাব গড়ে তোলা।

- উত্তর পূর্বের সমস্ত গ্রাম পঞ্চায়েত ও স্থানীয় সংস্থাগুলিতে কমন সার্ভিস সেন্টার এর নেটওয়ার্ক সম্প্রসারিত করা।

- উত্তর পূর্বে সাধারণ প্ল্যাটফর্ম গ্রহনযোগ্য করে তুলতে এবং চার-গুন বাৎসরিক ই-লেনদেনের জন্য ই-পরিষেবার পোর্টপোলিও প্রসারিত করা।

- ডিজিটাল টেকনোলজির মাধ্যমে গুনমানসম্পন্ন স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও কৃষি পরিষেবার সুযোগ পৌঁছে দেওয়া।

- ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে পর্যটন ও স্থানীয় কৃষি ভিত্তিক শিল্পের প্রচার করা।

- জীবনধারণের মানের উন্নয়ন করতে এবং স্থানীয় শিল্প ও সংস্কৃতি, হস্তশিল্প, হ্যান্ডলুম তৈরি করে কারিগরদের দক্ষতা এবং বাদ্যযন্ত্রের মাধ্যমে ডিজিটাল সমাধান ব্যবহার করা।

- মাইগভ: এর রাজ্য ভিত্তিক দৃষ্টান্তগুলি ভিত্তি করে অংশগ্রহণমূলক শাসনকে উন্নীত করা.

-উত্তর পূর্বে বিপিও,আইটি/ইলেকট্রনিক্স ম্যানুফ্যাকচারিং এবং সংশ্লিষ্ট শিল্পের জন্য স্কিল ডেভেলপমেন্ট করা ও যুবকদের জন্য কাজের সুযোগ তৈরী করা।

- ই-কমার্স এবং অন্যান্য অনলাইন বিক্রয় প্ল্যাটফর্মগুলি গ্রহণ করার জন্য স্থানীয় উদ্যোক্তাদের উন্নীত করা। নারী উদ্যোক্তাদের বিশেষ উৎসাহ দেওয়া।

- উত্তরপূর্বের জন্য স্টার্ট আপ এবং ইনোভেশন হাব স্থাপন করা।

- ভোক্তাদের এবং বণিকদের মধ্যে ডিজিটাল অর্থ প্রদানের প্রচারকে উৎসাহিত করা।

- ডিজিটাল উত্তর পূর্বের জন্য নিরাপদ এবং সুরক্ষিত সাইবার স্পেস প্রদান করতে বিশেষ সাইবার নিরাপত্তা ল্যাব স্থাপন এবং বিশেষ প্রশিক্ষণ ও আইইসির মাধ্যমে দক্ষতা উন্নয়ন।

শক্তি এবং সুযোগ

সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডারদের সাথে আলোচনার ভিত্তিতে, সম্প্রতি প্রস্তুতকৃত এবং উপলব্ধ ভিশন ডকুমেন্ট এ উত্তর পূর্ব রাজ্যগুলির পৃথক দৃষ্টিভঙ্গি, এবং আসাম, মেঘালয়, ত্রিপুরা, মিজোরাম, মিজোরাম, মণিপুর, নাগাল্যান্ড, অরুণাচল প্রদেশ এবং সিকিম ডিজিটাল সূচকগুলির সহজাত শক্তি এবং সুযোগের একটি উন্নত ধারণা এবং সমালোচনামূলক বিশ্লেষণ তুলে ধরা হয়েছে।

অংশীদারীদের ঐক্যবদ্ধতা, ই-উদ্যোগের উন্নতি, যুবক জনসংখ্যা, সাক্ষরতা হার, প্রাকৃতিক সম্পদ এবং প্রশস্ত অর্থ বিনিয়োগ সংস্থাগুলিকে শক্তি হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং কৌশলগত অবস্থানের দিক থেকে বিচ্ছিন্ন সিসমিক প্লেট, সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য, প্রাকৃতিক সম্পদ, ইলেক্ট্রনিক্সের জন্য গ্রীন ফিল্ড এবং বি পিও / কেপিওকে উত্তর পূর্ব অঞ্চলের ডিজিটাল ভারত প্রোগ্রামের সুযোগ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

সম্পদের ব্যবহার ও বাজেট পরিকল্পনা

ক) প্রস্তাবিত সম্পদ আহরণ নিম্নরূপ;-

- নন-ল্যাপসবল সেন্ট্রাল রিসোর্স (এনএলসিপিআর) পুলের সঞ্চিত সঞ্চয়

-এমইআইটি'র  ১০ শতাংশ বাজেট বরাদ্দ (উত্তর পূর্বের জন্য)

- ডিওটি'র ১০ শতাংশ বাজেট বরাদ্ধ (উত্তর পূর্বের জন্য)

- এমএসজেই'র ১০ শতাংশ বাজেট বরাদ্ধ (উত্তর পূর্বের জন্য)

- ডিজিটাল নর্থ ইস্ট এর জন্য এমডোনার এর বাজেট বরাদ্ধ

খ) ১০ শতাংশ বাজেট বরাদ্ধ ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ও দপ্তরের অব্যয়িত অর্থ ডিজিটাল নর্থ ইস্ট ভিশন এর জন্য নির্দিষ্ট করা হবে।

গ) উত্তর পূর্বের রাজ্যগুলিকে উৎসাহিত করা হবে যাতে মোট বাজেট বরাদ্ধের অন্ততঃ ৩ শতাংশ টাকা ডিজিটাল নর্থ ইস্ট -২০২২ কার্যকর করার জন্য নির্দিষ্ট করা হয়।


 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.