Facebook Google Plus Twiter YouTube
   
প্রয়োজনের তুলনায় আরও ১৬৩৩ জন চিকিৎসকের স্বল্পতা, ঘাটতি মেটাতে ৫ বছরের জন্য চিকিৎসকদের পুনর্নিয়োগের সিদ্ধান্ত মন্তি্রসভায়
By Our Correspondent, 08/01/2019, Agartala

রাজ্যে প্রয়োজনের তুলনায় ১৬শরও বেশি চিকিৎসকের সংকট রযেছে রাজ্যে৷ শূণ্যপদের তুলনায় কম রয়েছে ৮১৩ জন চিকিৎসকের৷ সহসা এত সংখ্যক চিকিৎসকও নিয়োগ করা সম্ভব নয়৷ তাই পরিস্থিতি মোকাবিলায় অবসরে চলে যাওয়া চিকিৎসকদের পুনর্নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে রাজ্য সরকার৷

স্বাস্থ্য পরিকাঠামোকে গ্রামের মানুষের দোড়গোড়ায় নিয়ে যেতে বিগত সরকার প্রচুর সংখ্যক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র কিংবা কমিউনিটি হেলথ সেন্টার চালু করেছিল৷ এখন পর্যন্ত ১১৩টি প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্র চালু করা হয়েছে৷ কমিউনিটি হেলথ সেন্টার রয়েছে ১২২টি৷ মাঝারি স্তরে ১২টি মহকুমা হাসপাতাল এবং ৬টি জেলা হাসপাতাল চালু রয়েছে ত্রিপুরায়৷

এছাড়া, শীর্ষস্তরে রয়েছে চারটি রেফারেল তথা রাজ্য ভিত্তিক হাসপাতাল৷ সারা রাজ্যে যে স্বাস্থ্য পরিকাঠামো রয়েছে তার জন্য প্রয়োজন মোট ২৬৪৩ জন চিকিৎসক৷ কিন্তু রাজ্যে বর্তমানে কর্মরত চিকিৎসকের সংখ্যা হলো মাত্র ১০১০ জন৷ অর্থাৎ প্রয়োজনের তুলনায় আরও ১৬৩৩ জন চিকিৎসকের স্বল্পতা রয়েছে৷ যদিও এই মূহূর্তে চিকিৎসকের শূণ্যপদের সংখ্যা রয়েছে ১৮২৩টি৷ ফলে শূণ্যপদের তুলনায় চিকিৎসকের ঘাটতি রয়েছে ৮১৩ জনের৷ এরমধ্যে স্পেশালিস্ট চিকিৎসকের ঘাটতি রয়েছে ২৭৫ জনের৷

স্বাস্থ্য পরিকাঠামো সম্প্রসারিত হলেও সেই তুলনায় চিকিৎসকের ঘাটতি কোনোভাবেই মেটানো যাচ্ছে না৷ এমনকি রাজ্যে দুটি মেডিক্যাল কলেজ থাকা সত্বেও তা সম্ভব হচ্ছে না৷ ছাত্রছাত্রীদের অনেকেই উচ্চ শিক্ষার নামে বাইরে গিয়ে আর ফিরে আসতে চাইছে না৷ বিগত সরকার এই অভিজ্ঞতার নিরিখে ৩৬ লক্ষ টাকার একটি বন্ড ব্যবস্থা চালু করেছিল৷ কিন্তু ব্যাপারে দপ্তরের তরফে কোনো নজরদারি কিংবা ব্যবস্থা গ্রহণ না হ্ওয়ায় পরিস্থিতি আগের মতই চলছে৷

আগামী চার বছরে রাজ্য থেকে আরও ৫৪ জন চিকিৎসক অবসরে যাবেন৷ এরফলে স্বাস্থ্য পরিষেবার সংকট আরও তীব্র হবে বলে মনে করছে রাজ্য সরকার৷ যদিও বর্তমান সরকার ক্ষমতাসীন হবার পর টিপিএসসি মাধ্যমে এখন পর্যন্ত মোট ২৫৫ জন চিকিৎসককে নিয়োগ করা হয়েছে৷ তা সত্বেও সম্ভাব্য সংকটের কথা চিন্তা করে চিকিৎসকদের পুনর্নিয়োগের জন্য একটি নীতি গত সোমবার মন্ত্রীসভার বৈঠকে গৃহিত হয়৷ মন্ত্রী রতনলাল নাথ জানিয়েছেন- দুই পর্যায়ে চিকিৎসকদের নিযুক্তি দেওয়া হবে৷ ৬০ বছরে অবসর গ্রহণের পর যদি চিকিৎসকের শারিরীক এবং মানসিক অবস্থা ঠিক থাকে তবে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসককে প্রথমে তিনবছরের জন্য ফিক্সড পে ভিত্তিতে নিযুক্তি দেওয়া হবে৷ এরপর ৬৩ বছর বয়সে যদি শারিরীকভাবে সুস্থ থাকেন তবে আরও দুইবছরের জন্য নিযুক্তি দেওয়া হবে৷ রাজ্যের স্বাস্থ্য পরিষেবার মানের উন্নয়ন ঘটাতে এবং এই পরিষেবাকে জনগণের দোড়গোড়ায় পৌছে দিতে বর্তমান সরকার দায়বদ্ধ৷ কারণেই সরকার এই সিদ্ধান্ত নিচ্ছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী শ্রীনাথ৷

 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.