Facebook Google Plus Twiter YouTube
   
নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল এর প্রতিবাদে নেসু'র বনধে মাধববাড়িতে ইট, বোমা, অগ্নিসংযোগ, গুলিতে আহত ৬ পিকেটার সহ পুলিশ, ১৪৪ ধারা জারি
By Our Correspondent, 08/01/2019, Agartala

সংসদে লোকসভায় যেদিন নাগরিকত্ত সংশোধনী বিল পাশ হয়ে গেল সেদিনই উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সম্মিলিত ছাত্র সংগঠন নর্থ ইস্ট স্টুডেন্ট ইউনিয়নের তথা নেসুর ডাকা বনধে লঙ্কাকান্ড ঘটে গেল রাজ্যে৷ এদিন বনধের পক্ষে পিকেটিং করতে এসে জিরানীয়ায় জাতীয় সড়ক অবরোধ করে ছাত্র সংগঠনের সদস্যরা৷ এমনকি একসময়ে পুলিশের উপর ইট পাটকেল বোমা নিয়ে চড়াও হলে পুলিশকেও গুলি ছোঁড়তে হয়৷ যার জেরে গুরুতর ভাবে আহত হয় পাঁচজন ছাত্র ও একজন টিএসআর জওয়ান৷ এদের মধ্যে গুরুতর একজনকে বুধবার কলকাতায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে৷

একই দিনে ধর্মঘটের আহ্বান করেছিল সিট্যুভুক্ত ১২টি সংগঠন৷ এর পরিপ্রেক্ষিতে রাস্তাঘাটে যান চলাচল অন্যান্যদিনের তুলনায় অনেকটাই কম ছিল৷ তবু সরকারি সিদ্ধান্ত ছিল কর্মীদের অফিসে যেতেই হবে৷ ফলে বিভিন্ন উপায়ে কয়েকশো কর্মচারীও জিরানিয়া অভিমুখে রওয়ানা হন৷ কিন্তু মাধববাড়ির সামনে গাড়িগুলিকে আটক করে দেওয়া হয়৷ পিকেটাররা রাস্তায় টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে রাখে৷ এমতাবস্থায় কিছু বিজেপি কর্মীও সেখানে উপস্থিত হয়৷ এরমধ্যে পুলিশকে লক্ষ্য করে পিকেটাররা পেট্রোল বোমা এবং ইট বৃষ্টি নিক্ষেপ করতে থাকে বলে অভিযোগ৷

এই পরিস্থিতিতে দুপুর ২টা নাগাদ পুলিশ পিকেটারদের ছত্রভঙ্গ করতে জল কামান এবং টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করে৷ কিন্তু তাতে পিকেটাররা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে পুলিশের উপর হামলে পরলে পুলিশ শূণ্যে গুলি ছোঁড়ে বলে অভিযোগ৷ কিন্তু গুলিতে ৬ জন পিকেটার আহত হয়৷ তারা হলো- সোমেন দেববর্মা, পহর দেববর্মা, শঙ্কর দেববর্মা, রবিকুমার দেববর্মা, সুমিত দেববর্মা ও ললিত দেববর্মা৷ এছাড়া, পিকেটারদের পাল্টা মারে দীনেশ কুমার নামে এক টিএসআর কনস্টেবলও আহত হয়৷ তাদের সকলকেই জিবি হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে চিকিৎসার জন্য৷ তবে হামলা পাল্টা হামলায় আরও কয়েকজন অল্প আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে৷ তাদেরকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে৷ গুরুতর আহতদের মধ্যে একজনকে রাতে আইএলএস হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে৷ আগামীকাল তাকে কলকাতা আরএন ঠাকুর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী সুদীপ রায় বর্মণ৷

ঘটনার পর আহতদের দেখতে হাসপাতালে ছুঁটে গেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী শ্রী রায় বর্মণ, উপজাতি কল্যাণমন্ত্রী মেবার জমাতিয়া ও উপ মুখ্যমন্ত্রী যীষ্ণু দেববর্মণ৷ এছাড়া বিরোধী দলনেতা মানিক সরকার, উপনেতা বাদল চৌধুরী সহ আরও কয়েকজন প্রাক্তন মন্ত্রীও তাদের দেখতে হাসপাতালে যান৷ এই ঘটনার যথাযথ তদন্ত দাবি করেছেন বিরোধী দলনেতা মানিক সরকার৷ ঘটনার পর থেকে এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করা হযেছে৷

পুলিশের গুলি চালনার পর ক্ষিপ্ত জনতা মাধববাড়ি চৌমুহনি এলাকার ১৫টিরও বেশি দোকানে আগুন লাগিয়ে দেয়৷ ঘটনার পর থেকে এলাকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে৷ পুলিশ এলাকায় টহল দিচ্ছে৷

 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.