Facebook Google Plus Twiter YouTube
   
মাদক সেবনে শীর্ষে ত্রিপুরা, পিছিয়ে নেই মহিলারাও, ৫৫ শতাংশ মানুষের মৃত্যু হচ্ছে নেশার কবলে পড়ে, ৪২.২ শতাংশ মহিলা রয়েছেন যারা মাদকাসক্ত
By Our Correspondent, 06/02/2019, Agartala
 

রাজ্যজুড়ে চলছে প্রবল নেশাবিরোধী অভিযান৷ নতুন সরকার এই ইস্যুতে মানিক সরকারের নেতৃত্বে পূর্বতন বাম সরকারের দৃষ্টিভঙ্গির বিরুদ্ধে গিয়ে অভিযান চালিয়ে গেলেও তা নিয়ে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি বিরোধী মহল৷ এখনো এই মহলটি সক্রিয়৷ অথচ বিগত ২৫ বছরের রাজত্বে রাজ্যকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছিল বাম সরকার তার এক জ্বলন্ত তথ্য এবার তুলে ধরলেন জাতীয় স্বাস্থ্য মিশনের মিশন ডিরেক্টর৷ সংক্রান্ত একটি প্রশ্রের উত্তরে এদিন তিনি জানিয়েছেন, মাদক সেবনে দেশের সেরা রাজ্য ত্রিপুরা৷ শুধু তাই নয়, গত দশ বছরে যেখানে সারা দেশে মাদক সেবন ১০ শতাংশ কমেছে সেখানে ত্রিপুরায় বেড়ে গেছে আরও ১০ শতাংশ৷ এছাড়া, প্রতিবছর ৫৫ শতাংশ মানুষের মৃত্যুও হচ্ছে এই মাদক সেবনের কারণে৷

মহাকরণে সাংবাদিকদের একটি প্রশ্নের উত্তরে এমডি এনএইচএম শৈলেশ কুমার যাদব জানান- বর্তমানে টোবাকো সেবনে দেশের এক নম্বর রাজ্য হলো ত্রিপুরা৷ এর আগে এক নম্বরে ছিল মিজোরাম৷ কিন্তু গত ১০ বছরে মিজোরাম সমেত দেশের সমস্ত রাজ্যকে পেছেনে ফেলে ত্রিপুরা উঠে এসেছে দেশের সেরা রাজ্যের তালিকায়৷ শ্রী যাদব জানিয়েছেন, অন্য রাজ্যগুলি ১০ শতাংশ হারে মাদক সেবন কমাতে সক্ষম হয়েছিল৷ কিন্তু ত্রিপুরায় তা কমার পরিবর্তে আরও ১০ শতাংশ বেড়ে গেছে৷ গ্লোবাল এডাল্ট টোবাকো সার্ভে তথা গেটস নামে এই আন্তর্জাতিক সংস্থা রিপোর্টটি তৈরি করেছিল৷

তিনি জানান, ত্রিপুরার ৪২. শতাংশ মহিলা রয়েছেন যারা মাদকাসক্ত এবং ৬৭. শতাংশ পুরুষ রয়েছেন মাদকাসক্ত৷ সারা দেশে যেখানে মহিলারা মদ পান করেন . শতাংশ সেখানে ত্রিপুরায় . শতাংশ মহিলা মদ পান করেন৷ অন্যদিকে, পুরুষদের মাদক সেবনের হার ত্রিপুরায় ৬৭. শতাংশ৷ এরমধ্যে মদ পান করেন এই সংখ্যাটা হলো ৫৭. শতাংশ৷ প্রতিবছরই মাদকাসক্ত হবার প্রবণতা বেড়ে চলেছে৷ কেননা, গেটস ২০১৬-১৭ সালে ১৫-৫০ বছর বয়সের মানুষকে নিয়ে যে রিপোর্টটি তৈরি করেছিল তখন ত্রিপুরায় ধূমপান এবং ধূমপানবর্হিভূত মাদক সেবনের পরিমাণ ছিল ৬৪. শতাংশ৷ এই দুই বছরেও সংখ্যাটা বৃদ্ধির দিকেই৷ দেশের ৩৩টি রাজ্য কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মধ্যে ত্রিপুরা একেবারে শীর্ষে অবস্থান করছে এই তালিকায়৷

লক্ষ্যণীয় ঘটনা হলো- আন্তর্জাতিক এই সংস্থাটির রিপোর্ট সম্পর্কে তৎকালীন বাম সরকারও যথেষ্ট ওয়াকিবহাল ছিল৷ কিন্তু নেশার বিরুদ্ধে অভিযান চালানো তো দূর গাঁজা চাষ কিংবা বিভিন্ন নেশা সামগ্রির ব্যবসাকে শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিল তৎকালীন সরকার৷ আন্তর্জাতিকস্তরে স্বীকৃত নিরপেক্ষ এই সংস্থার রিপোর্টই এই তথ্য তুলে ধরলো বলা চলে৷ এমডি শৈলেশ কুমার যাদব জানিয়েছেন, ত্রিপুরায় মানুষের মৃত্যুর জন্য প্রধান যে পাঁচটি কারণ দায়ি এরমধ্যে দ্বিতীয় নম্বরেই রয়েছে মাদকাসক্তি৷ গড়ে ৫৫ শতাংশ মানুষের মৃত্যু হচ্ছে এর কারণে প্রতিবছর৷ যাকে চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয় ক্রনিক অবস্ট্রাটিক পালমোনারি ডিজিস তথা সিওপিডি৷ তবে মৃত্যুর তালিকায় পাঁচ নম্বর স্থানটি রয়েছে আত্মহত্যার৷ গড়ে প্রতিবছর ৩৭ শতাংশ মানুষ স্বেচ্ছায় মৃত্যুকে বেছে নিচ্ছেন ত্রিপুরায়৷ যা নিয়ে যথেষ্ট উদ্বিগ্ন স্বাস্থ্য দপ্তরও৷ সাধারণ হতাশা থেকেই মানুষ এই ভয়ঙ্কর পরিণতিকে বেছে নিচ্ছেন৷

 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.