Facebook Google Plus Twiter YouTube
   
দ্বাদশের অসমাপ্ত পরীক্ষা নেওয়া হবে ৫ জুন থেকে, সরকারের আবেদনে ফী কমালো বেসরকারি স্কুল, উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দেবে ৮৭৪৯ জন
By Our Correspondent, 21/05/2020, Agartala

দ্বাদশ শ্রেণীর অসমাপ্ত পরীক্ষা আগামী ৫ জুন থেকে  নেওয়া হবে৷ এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী রতন লাল নাথ৷ এদিকে, রাজ্য সরকারের আবেদনে সাড়া দিয়ে এ বছর বেসরকারি স্কুলগুলি টিউশন ফি কিংবা অন্যান্য ফী কমিয়েছে অনেকেই৷ তবে অনেকেই এপ্রিল মাসের ফী কমালেও মে মাস নিয়ে সিদ্ধান্ত জানায়নি৷ এমতাবস্থায় রাজ্য সরকারের তরফে তাদের কাছে পুনরায় চিঠি পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী শ্রী নাথ৷

বলাবাহুল্য যে, লকডাউনের কারণে আচমকাই উচ্চ মাধ্যমিকের ও মাধ্যমিকের পুরনো কোর্সের কয়েকটি পরীক্ষা স্থগিত করে দিতে হয়েছিল পর্ষদকে৷ এখন লকডাউন অনেকটাই শিথীল করা হয়েছে৷ এমতাবস্থায় বাতিল পরীক্ষাগুলি নেওয়ার জন্য মধ্যশিক্ষা পর্ষদ সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ মন্ত্রী জানিয়েছেন- ৫ জুন নেওয়া হবে মাধ্যমিকের পুরনো কোর্সের ফিজিক্যাল সায়েন্স ও উচ্চ মাধ্যমিকের সংস্কৃত ও স্ট্যাটিসটিক্স৷ ৬ জুন হবে মাধ্যমিকের লাইফ সায়েন্স ও উচ্চ মাধ্যমিকের ফাজিল কোর্সের ইকোনমিক্স৷ ৮ জুন মাধ্যমিকের তাফসির ও উচ্চ মাধ্যমিকের সাইকোলজি৷ ৯ জুন মাধ্যমিকের হাদিত ও উচ্চ মাধ্যমিকের আরবিক ও মিউজিক৷ ১০ জুন হবে উ্চ্চ মাধ্যমিকের জিওগ্রাফি ও ১১ জুন হবে হোম ম্যানেজমেন্ট এন্ড হোম নার্সিং ও নিউট্রেশন৷ এ বছর উচ্চ মাধ্যমিকের মোট ছাত্রছাত্রী ছিল ২৭,১৪২ জন৷ এরমধ্যে লকডাউনের কারণে এই পরীক্ষাগুলি বাতিল হয়ে গিয়েছিল৷ ফলে এই যাত্রায় মোট ৮৭৪৯ জন উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা দেবে৷

 অন্যদিকে মাধ্যমিকের পুরনো কোর্সে পরীক্ষা দেবে ৩০৯ জন৷ ইতোমধ্যে খাতা দেখার প্রক্রিয়াও প্রায় শেষ হয়ে গেছে৷ যদিও মাধ্যমিকের নতুন কোর্সের পরীক্ষা সবগুলিই হয়ে গেছে৷ সংশোধিত পরীক্ষা সূচী অনুযায়ী ধলাইয়ের রেড জোন এলাকায় একটি সেন্টার থাকায় সেটি বাতিল করে এই সেন্টারের ৩৫ জন পরীক্ষার্থীদের আমবাসা চন্দ্রাইপাড়া নিয়ে আসা হবে৷ এই পর্বে ৫৮টি সেন্টারের মোট ৮২টি ভেন্যুতে পরীক্ষা নেওয়া হবে৷ পরীক্ষা গ্রহণের ক্ষেত্রে উপযুক্ত স্যানিটাইজেশন এবং সামাজিক দূরত্বে বিষয়টি মানতে হবে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রী৷

এপ্রিল মাস থেকে সম্পূর্ণরূপে বন্ধ রয়েছে স্কুলগুলি৷ এমতাবস্থায় রাজ্য সরকার এই স্কুলগুলির অধ্যক্ষদের নিয়ে একটি বৈঠক করে ফী কমানোর জন্য আবেদন করেছিলেন৷ সরকারের আবেদনে সাড়া দিয়েছে রাজ্যের প্রায় সব কয়টি স্কুলই৷ যদিও প্রত্যেকটি স্কুলই নিজেদের মত করে সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ কিন্তু অনেকেই এপ্রিল মাসের ফী”তে ছাড় দিলেও মে মাস সম্পর্কে কিছু উল্লেখ করেনি৷ এই স্কুলগুলিকে পুনরায় সরকারের তরফে চিঠি দেওয়া হবে যাতে স্কুল না খোলা অবধি এই ছাড় অব্যাহত রাখা হয়৷

 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.