Facebook Google Plus Twiter YouTube
   
সম কাজে সম বেতন-সহ ছয় দফা দাবির ভিত্তিতে জেল ভরো আন্দোলন সিপিএমের, অনুমতি না নিয়েই মিছিলের উদ্যোগ, পুলিশের রাজপথে জলকামান
By Our Correspondent, 09/08/2018, Agartala

পুলিশের জালকামানে বাম রাজনীতির মরা গাঙে জোয়ার আনার চেষ্টা শুরু হলো। টানা ২৫ বছর ধরে শাসন ক্ষমতায় থাকা সিপিএম হঠাৎ আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুষ্ঠ দেখিয়ে শহরে মিছিলের সংস্কৃতিতে মেতে উঠেছে। এদিন সম কাজে সম বেতন-সহ ছয় দফা দাবির ভিত্তিতে গোটা দেশের সঙ্গে সংগতি রেখে ত্রিপুরায়ও সিপিআইএম-এর শাখা সংগঠনগুলো জেল ভরো আন্দোলন সংগঠিত করেছে।

এদিন ত্রিপুরা রাজ্যে প্রধান কর্মসূচি হয় আগরতলায়। প্যারাডাইস চৌমুহনিতে ক্ষমতাসীন দলের প্রায় ৫০০ সদস্য জড়ো হন মিছিলের জন্য। কিন্তু পুলিশ তাদের মিছিল করতে দেয়নি। আন্দোলনকারীদের পুলিশ ঘেরাও করে রাখে। এক সময় আন্দোলনকারীরা ঘেরাও ভেঙে মিছিল নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ প্রথমে জল-কামান প্রয়োগ করে। এতে আন্দোলনকারীরা ক্ষান্ত না হলে পুলিশ পর পর একাধিক টিয়ার গ্যাসের বুলেট ছুঁড়ে। তবু আন্দোলন অব্যাহত রাখার চেষ্টা করলে পুলিশ লাঠিচার্জ করতে উদ্যত হলে আন্দোলনকারীরা ছত্রভঙ্গ হয়ে পড়েন।

সিপিআইএম রাজ্য কমিটির সদস্য পবিত্র কর সাংবাদিকদের বলেন, তাঁরা শান্তিপূর্ণভাবে আগরতলা শহরের রাজপথে মিছিল করে জেলাশাসকের কাছে স্মারকপত্র দেওয়ার পরিকল্পনা নিয়েছিলেন। কিন্তু পুলিশ তাদের কিছুই করতে দেয়নি। এমন-কি বিনা প্ররোচনায় পুলিশ তাঁদের উপর চড়াও হয়। পুলিশের প্রথম থেকেই আক্রমণাত্মক ছিল। তাদের হাতে বয়স্ক মহিলারাও রেহাই পাননি বলে অভিযোগ করেন তিনি।

পশ্চিম জেলার পুলিশ সুপার অজিতপ্রতাপ সিং বলেন, আগে থেকে কোনও অনুমতি নেননি আন্দোলনকারীরা। তাই তাঁদের গ্রেফতার করতে বাধ্য হয়েছে পুলিশ। পুলিশ তাঁদের প্রথমে বুঝিয়ে ক্ষান্ত করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু তাঁরা পুলিশকে সহযোগিতা করেননি। তাই জল-কামান, টিয়ার গ্যাস ব্যবহার করতে হয়। আন্দোলনকারীদের হামলায় পুলিশ কর্মী আহত হলে মৃদু লাঠিচার্জ করতে বাধ্য হয় বলেও তিনি জানান।
এদিন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকারও আন্দোলন কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন। সাংবাদিকরা তাঁকে এদিনের আন্দোলনের বিষয়ে জিজ্ঞাসা করেন। কিন্তু তিনি কোনও মন্তব্য করেননি।

বৃহস্পতিবারের এই আন্দোলনকে কেন্দ্র করে আগরতলা প্যারাডাইস চৌমুহনি থেকে সিপিআইএমের মিছিল শহরের বিভিন্ন পথ পরিক্রমা করবে বলে বামেদের পরিকল্পনা ছিল। মিছিলে সারা ভারত কৃষক সভা, খেতমজুর ইউনিয়ন, গণমুক্তি পরিষদ, সিআইটিইউ রাজ্য কমিটির সদস্যরা শামিল হন। প্যারাডাইস চৌমুহনিতে জনসভা করার পরিকল্পনাও ছিল। কথা ছিল সেখানে প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার বক্তব্য পেশ করবেন।  বামেদের জেল ভরো আন্দোলনকে কেন্দ্র শহরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা আগে থেকেই জোরদার করা হয়। নিরাপত্তার খাতিরে মোতায়েন করা হয় কেন্দ্রীয় আধাসামরিক বাহিনী, রাজ্য পুলিশ, টিএসআআর জওয়ানদের।

জানা গেছে, পুলিশের ছোঁড়া টিআরগ্যাসে আহত হয়েছেন সিপিআইএমের কয়েকজন নেতা। এঁদের মধ্যে উল্লেখযোগ্যরা হলেন প্রাক্তন বিধায়ক রতন দাস, নারী নেত্রী রমা দাস, কৃষ্ণা রক্ষিত। তাঁদের আইজিএম হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হলে তাদের প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। রাজ্যের অন্যত্রও জেলভরো আন্দোলন সংগঠিত হয়েছে।  রাজ্যের কয়েকটি জায়গায় গণ্ডগোলের খবরও পাওয়া গেছে।

 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.