Facebook Google Plus Twiter YouTube
   
পাঁচ রাজ্যের বিধানসভার নির্বাচনের দিন ঘোষণা, নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে কংগ্রেসের অভিযোগ
Burue Report, 06/10/2018, New Delhi

পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা ভোটের দিন ঘোষণা করল জাতীয় নির্বাচন কমিশন। ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান এবং মিজোরামে ভোটের দিন ঘোষণা হল। শনিবার দিল্লিতে নির্বাচন কমিশনের দফতরে এই ঘোষণা করলেন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত। তেলেঙ্গানায় বিধানসভায় ভেঙে দেওয়া হয়েছে বলে সেখানেও ভোট হবে। এর মধ্যে শুধু ছত্তিশগড়েই দু’দফায় ভোট হবে। বাকি জায়গায় এক দফায় ভোট হবে।সচিত্র ভোটার স্লিপ দেওয়ার ঘোষণা করল কমিশন। চার রাজ্যে আজ থেকেই লাগু হচ্ছে নির্বাচনী আচরণ বিধি। বিধানসভা ভেঙে দেওয়ায় তেলেঙ্গানায় তা আগেই কার্যকর হয়েছে।

কর্নাটকের শিমোগা, বেলারি এবং মাণ্ডতে ৩ নভেম্বর উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন রাওয়াত। ইতিমধ্যেই ভেঙে দেওয়া হয়েছে তেলেঙ্গানার বিধানসভা। মিজোরামের বিধানসভায় মেয়াদ শেষ হচ্ছে ১৫ ডিসেম্বর। ছত্তিসগড়, মধ্যপ্রদেশ ও রাজস্থানের বিধানসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী বছরের ৫, ৭ ও ২০ জানুয়ারি। আর তেলেঙ্গানাতে গত সেপ্টেম্বরে সরকার ভেঙে দেওয়া হয়েছে৷ ফলে ছ’মাসের মধ্যে ওই রাজ্যেও ভোট হওয়ার কথা৷ এদিন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত এই পাঁচ রাজ্যের বিধানসভার নির্বাচনের দিন ঘোষণা করে জানান, আগামী ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে ওই রাজ্যগুলিতে ভোট প্রক্রিয়া শেষ করতে হবে৷
এদিন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওপি রাওয়াত জানান, দু-দফায় নির্বাচন হবে ছত্তিশগড়ে। প্রথম দফার (১৮টি আসনে) নির্বাচন হবে ১২ নভেম্বর। আর দ্বিতীয় দফার (৭২টি আসনে) নির্বাচন হবে ২০ নভেম্বর। এছাড়া মধ্যপ্রদেশ এবং মিজোরামে একই দিনে ভোটের নির্ঘণ্ট ঘোষণা করেছে কমিশন। ২৩০টি আসনের মধ্যপ্রদেশ বিধানসভার ভোট ২৮ নভেম্বর। ওইদিন ৪০ আসনের মিজোরামেও ভোট হবে।

রাজস্থান এবং তেলেঙ্গানার ভোটও হবে একদিনেই। আগামী ৭ ডিসেম্বর এই দুই রাজ্যে বিধানসভা ভোট হবে। সব রাজ্যেই ফল ঘোষণা হবে ১১ ডিসেম্বর।
ভোট ঘোষণা হওয়া পাঁচ রাজ্যের মধ্যে তিনটিতেই ক্ষমতায় রয়েছে বিজেপি। এই তিন রাজ্য হল মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, ছত্তিশগড়।

মধ্যপ্রদেশ বিধানসভায় ২৩০টি আসন। ২০১৩ সালের ভোটে বিজেপি একাই জিতে নিয়েছিল ১৬৫টি। কংগ্রেস পেয়েছিল ৫৮টি আসন। অন্যান্য ৭। আর রাজস্থানে ২০০ আসনের মধ্যে ১৬৩টিতে জিতে ক্ষমতায় এসেছিল বিজেপি। কংগ্রেস পেয়েছিল মাত্র ২১টি আসন। ১৬টি আসন ছিল অন্যান্যদের দখলে। ছত্তিশগড়ে ৯০ আসনের মধ্যে ৪৯ আসনে জিতেছিল বিজেপি। কংগ্রেস পায় ৩৯টি আসন। অন্যান্য ২।
এই পাঁচ রাজ্যের মধ্যে একমাত্র মিজোরামেই জিতেছিল কংগ্রেস। ৪০ আসনের বিধানসভায় কংগ্রেস জিতেছিল ৩৪টিতে।

তেলেঙ্গানা রাজ্য গঠনের পর এই প্রথম বিধানসভা ভোট হতে চলেছে রাজ্যে। ২০১৪ সালে অন্ধ্রপ্রদেশ বিধানসভা ভোটে, বর্তমান তেলেঙ্গানা এলাকায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা ছিল তেলঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতি বা টিআরএস-এর। তার ভিত্তিতেই নবগঠিত রাজ্যে সরকার গড়েছিলেন টিআরএস নেতা চন্দ্রশেখর রাও। তেলঙ্গানার ১১৯টি আসনের মধ্যে টিআরএস দখল করেছিল ৬৩টি। কংগ্রেস পেয়েছিল ২১টি। তেলুগু দেশম পার্টি (টিডিপি) পেয়েছিল ১৫টি। অন্যান্য ২০।
পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণার জন্য ডাকা সাংবাদিক সম্মেলনের সময় পিছিয়ে দেওয়ায় নির্বাচন কমিশনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলল কংগ্রেস। শনিবার সকালে কমিশনের তরফে জানানো হয় বেলা সাড়ে বারোটায় ঘোষণা করা হবে। পরে সেটা পিছিয়ে দেওয়া হয়। জানানো হয়েছে, সাংবাদিক বৈঠক হয় দুপুর তিনটে। কমিশনের দাবি সাংবাদিকদের সুবিধার কথা মাথায় রেখেই দিন ঘোষণার সময় পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে কংগ্রেসের দাবি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সভার জন্যই পিছিয়েছে সাংবাদিক বৈঠক। কংগ্রেসের দাবি দিন ঘোষণার পরই রাজস্থান সহ ওই চার রাজ্যে আদর্শ আচরণ বিধি লাগু হয়ে যাবে। আর সেই কারণেই সময় পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এদিন কংগ্রেস মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা টুইট করেন। তিনি লেখেন তিনটি সত্য আমাদের সামনে রাখছি। এরপর আপনারা নিজেরাই সিদ্ধান্ত বের করবেন। এক, নির্বাচন কমিশন জানাল দিন ঘোষণা হবে সাড়ে বারোটায়। দুই, প্রধানমন্ত্রীর সভা শুরু হচ্ছে একটায়। তিন নির্বাচনের দিন ঘোষণার সময় বদলে দেওয়া হল।
রাজ্য বিধানসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা করার সঙ্গে সঙ্গে মিজোরামে সম্ভাব্য প্রতিদ্বন্দ্বী রাজনৈতিক দলগুলি উলটো গোনা শুরু করে দিয়েছে। হতে আর সময় নেই। তাই প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দলের দফতরে তাবড় নেতাদের আনাগোনার গতিও বেড়ে গিয়েছে।

মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত ভোটের দিনক্ষণ ঘোষণার সুবাদে বিভিন্ন দলের কার্যালয়ে ছিল দলীয় নেতা-কর্মীদের টানটান উত্তেজনা। যথাসময়ে কমিশন জানিয়েছে মিজোরামে আগামী ২৮ নভেম্বর বিধানসভা নিৰ্বাচন হবে। নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা হবে ১১ ডিসেম্বর। তা ঘোষণার পর এবার রাজনৈতিক পারদ চড়তে শুরু করেছে রাজ্যে।
৪০ সদস্যের মিজোরাম বিধানসভা নির্বাচনের জন্য রাজ্যে এ মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি তৎপর শাসকদল কংগ্রেস। তার পরই রয়েছে প্রধান বিরোধী তথা পূর্ববর্তী শাসকদল মিজো ন্যাশনাল ফ্রন্ট। সর্বোপরি বিজেপি তো আছেই।

আগামীবছর দেশজুড়ে লোকসভা ভোট হতে চলেছে। তার আগে সরকার এবং বিরোধী সব পক্ষেরই জোরালো নজর থাকছে এই পাঁচ রাজ্যের দিকে। বিশেষ করে মধ্যপ্রদেশ এবং রাজস্থানের মত দুই তুলনামূলক বড় রাজ্য। কংগ্রেসের আশা, দুই রাজ্যেই এবার ভাল ফল করবে তারা। আর ক্ষমতাসীন বিজেপি লোকসভা ভোটের আগে তিন রাজ্যই নিজেদের দখলে রাখতে মরিয়া। লোকসভা ভোটের আগে এটাই বিজেপি আর কংগ্রেসের শেষ বড় নির্বাচনী পরীক্ষা। মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, ছত্রিশগড় আর মিজোরামের বিধানসভা ভোট নির্ধারিতই ছিল এ বছরের শেষে। এর মধ্যে গত মাসে আচমকা তেলঙ্গানা বিধানসভা ভেঙে দেন মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রশেখর রাও। ফলে সেখানেও ভোট এগিয়ে আসছে।অন্য দিকে বিজেপি-র কাছে বেশ টেনশনের ভোট এটা। ২০১৪-র লোকসভা ভোটে একের পর এক রাজ্য ভেসে গিয়েছিল মোদী হাওয়ায়। উত্তরপ্রদেশ, মধ্যপ্রদেশ, ছত্রিশগড়, রাজস্থান থেকে শুরু করে গুজরাত, কর্নাটক, বিহার, দিল্লি সর্বত্রই ঝড় বয়েছিল বিজেপির। কিন্তু সামনের লোকসভা ভোটের আগে এই রাজ্যগুলো নিয়ে বেশ চিন্তিত বিজেপি। এই সব রাজ্যে আসন কমবে ধরে নিয়ে, বিজেপি ঝাঁপিয়েছে উত্তর-পূর্ব ভারতের ছোট ছোট রাজ্যগুলোর দিকেও। এবং সেখানে কংগ্রেসকে অনেকটাই পিছনে ফেলে দিয়েছে তারা। উত্তর-পূর্বে কংগ্রেসের একমাত্র দুর্গ এখন মিজোরামই।

 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.