Facebook Google Plus Twiter YouTube
   
ঘূর্ণিঝড় 'তিতলি'র দাপটে অন্ধ্রপ্রদেশে আটজনের মৃত্যু, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি, রাজ্যে গভীর নিম্নচাপে আশঙ্কা
Burue Report, 11/10/2018, Bhubaneswar

ঘূর্ণিঝড় 'তিতলি'র দাপটে অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীকাকুলাম ও বিজয়নগরম জেলায় এখনও পর্যন্ত আটজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গিয়েছে। রাজ্য প্রশাসনের তরফে এই খবর জানানো হয়েছে৷এছাড়াও ১০টি গবাদি পশুর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকালে অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীকাকুলাম জেলায় আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড় 'তিতলি'। 'তিতলি'-র দাপটে উপড়ে পড়েছে শতাধিক গাছ ও বিদ্যুতের খুঁটি। শ্রীকাকুলাম জেলার বিভিন্ন মন্ডলে ২ সেন্টিমিটার থেকে ২৬ সেন্টিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টি হয়েছে। রাস্তার উপর গাছ উপরে পড়ায় বাস পরিষেবা স্থগিত রাখে রাজ্য পরিবহন নিগম। গোটা পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে প্রশাসন।

এদিকে, প্রবল ঝড়ে ওডিশার গোপালপুরে ৫ মত্‍‌স্যজীবীকে নিয়ে ডুবে যায় একটি নৌকা। তবে উদ্ধারকারী দলের তত্‍‌পরতায় সবাইকে রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ছটায় ঘণ্টায় ১৭৫ কিলোমিটার গতিবেগে গোপালপুরে আছড়ে পড়ে এই ঘূর্ণিঝড়। ওড়িশা উপকূল থেকে ৩ লক্ষ মানুষকে নিরাপদ দূরত্বে সরানো হয়েছে। ঝড়ের তাণ্ডবে উপড়ে গিয়েছে অসংখ্য গাছ, বিদ্যুতের খুঁটি। ভারী বৃষ্টি চলছে ওডিশার বিভিন্ন অঞ্চলে। গঞ্জাম, গজপতি, পুরী, খুরদা ও জগত্‍‌সিংহপুরে প্রবল বৃষ্টি হচ্ছে। সঙ্গে ঝোড়ো হাওয়া। ঝড়ের জেরে রাউরকেল্লা-পুরী, ভুবনেশ্বর-বেঙ্গালুরু প্রশান্তি এক্সপ্রেস দুদিনের জন্য বাতিল করা হয়েছে। বাতিল ভুবনেশ্বর-চেন্নাই সেন্ট্রাল এক্সপ্রেস, যশবন্তপুর-হাওড়া এক্সপ্রেস, বেঙ্গালুরু-গুয়াহাটি এক্সপ্রেস ও যশবন্তপুর-মুজফফরপুর এক্সপ্রেস। ঝড় তাণ্ডব দেখিয়েছে কলিঙ্গপত্তনমেও। ওড়িশা উপকূলের পাঁচ জেলায় বুধবারই সতর্কতা জারি হয়।
বৃহস্পতিবার সকালে অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীকাকুলাম জেলায় আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড় 'তিতলি'। 'তিতলি'-র দাপটে উপড়ে পড়েছে শতাধিক গাছ ও বিদ্যুতের খুঁটি। শ্রীকাকুলাম জেলার বিভিন্ন মন্ডলে ২ সেন্টিমিটার থেকে ২৬ সেন্টিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টি হয়েছে। রাস্তার উপর গাছ উপরে পড়ায় বাস পরিষেবা স্থগিত রাখে রাজ্য পরিবহন নিগম। গোটা পরিস্থিতির দিকে নজর রাখছে প্রশাসন।

এদিকে, প্রবল ঝড়ে ওডিশার গোপালপুরে ৫ মত্স্যজীবীকে নিয়ে ডুবে যায় একটি নৌকা। তবে উদ্ধারকারী দলের তত্পরতায় সবাইকে রক্ষা করা সম্ভব হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৫.৩০ মিনিট নাগাদ ওডিশার গোপালপুর রিজিওন-এ আছড়ে পড়ে ঘূর্ণিঝড় 'তিতলি'। ঘূর্ণিঝড়ের প্রকোপ থেকে বাঁচাতে নিরাপদ জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয় বহু মানুষজনকে। 'তিতলি'-র দাপটে উপড়ে পড়ে বহু গাছ ও বিদ্যুতের খুঁটি। মাটিতে মিশেছে একাধিক কাঁচা বাড়ি। গোপালপুর-বেরহামপুর সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। ওডিশার গঞ্জাম জেলায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ সর্বাধিক হতে পারে।
তবে বিপদের হুংকার থাকলেও বাংলার কাছে আদতে আশীর্বাদ হতে পারে ঘূর্ণিঝড় তিতলি। এমনটাই মনে করছেন আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা। বৃহস্পতিবার সকালে গোপালপুরের কাছ দিয়ে প্রবেশ করে প্রবল ঘূর্ণিঝড় তিতলি। এদিন দুপুর সাড়ে বারোটার বুলেটিনে আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, গোপালপুর এবং ফুলবনির মাঝখানে অবস্থান করছে তিতলি। বৃহস্পতিবার বিকেল থেকেই পশ্চিমবঙ্গ অভিমুখী হয়ে যায়। কিন্তু এতে বিশেষ চিন্তা হওয়ার কোনও কারণ নেই। তিতলি, পশ্চিমবঙ্গের দিকে এলেও ক্রমশ শক্তি হারাবে। শুক্রবার সকাল নাগাদ রাজ্যের দোরগোড়ায় হাজির হলেও ততক্ষণে শক্তিক্ষয় করে গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে।

আলিপুর আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, শুক্রবার সকাল পর্যন্ত রাজ্যের উপকূলবর্তী দুই মেদিনীপুর এবং দুই ২৪ পরগণায় অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে। দক্ষিণবঙ্গের বাকি জেলায় হবে ভারী বৃষ্টি। শনিবার সকাল পর্যন্ত দক্ষিণবঙ্গের সব জেলাতেও অতি ভারী বৃষ্টির সতর্কতা দিয়ে রেখেছে আবহাওয়া দফতর। আবার রবিবার সকাল পর্যন্ত মুর্শিদাবাদ, বীরভূম এবং নদিয়ায় অতি ভারী বৃষ্টির সতর্কতা দেওয়া হয়েছে। ভারী বৃষ্টি হতে পারে দুই দিনাজপুর এবং মালদহে।
এবার বর্ষায় স্বাভাবিকের থেকে অনেক কম বৃষ্টি হওয়ায় কার্যত শুখা জায়গার রূপ নিয়েছে মুর্শিদাবাদ, মালদহ এবং বীরভূম। শুকিয়ে গিয়েছে খালবিল নালা ইত্যাদি। এই আবহে আগামী দু’তিন দিন ওই জেলায় যদি অতি ভারী বৃষ্টি হয়, তা হলে সামনের শুখা মরশুমের কথা মাথায় রাখলে ব্যাপারটা ভালই হবে

 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.