Facebook Google Plus Twiter YouTube
   
অসমের তিনসুকিয়ায় গণহত্যা, নিহত ৫জন বাঙালি, দেশজুড়ে নিন্দা, করিমগঞ্জে উত্তাল প্রতিবাদ, আজ বন্ধ
Burue Report, 01/11/2018, Guwahati

অসমের তিনসুকিয়ায় সন্দেহভাজন আলফা জঙ্গিরা বৃহস্পতিবার আইএসআইএস কায়দায় ৫জনকে খুন করেছে। নিহতরা সকলেই বাঙালি জাতিগোষ্ঠীর।  এনআরসির জেরেই এই হত্যাকান্ড বলে মনে করা হচ্ছে। এই ঘটনায় দেশজুড়ে নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় বইছে। ধলা-কাণ্ডের প্ৰতিবাদে মুখর হয়ে উঠেছে সদর করিমগঞ্জ-সহ গোটা জেলা।

গতকাল আলফার গুলিতে যাদের হত্যা করা হয়েছে তারা হলো সুবল দাস, শ্যামল বিশ্বাস, আবিনা বিশ্বাস, অনন্ত বিশ্বাস ও ধনঞ্জয় নমঃশুদ্র।  বৃহস্পতিবার সন্ধ্যারাতে  তিনসুকিয়ার শদিয়ার সৈখোয়ায় ধলা এলাকার খেরবাড়ি বিছনিগাঁওয়ে পাঁচ নিরীহ হিন্দু বাঙালিকে আইসিস-এর কায়দায় শূন্য দূরত্ব থেকে নির্মমভবে গুলি করে হাতটা করে।
এই নারকীয় হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আজ শুক্রবার করিমগঞ্জ শহরের বুক চিড়ে যাওয়া জাতীয় সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন বিভিন্ন দল ও সংগঠনের নেতারা। দলের কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে এআইইউডিএফ-এর টিকিটে নির্বাচিত করিমগঞ্জের সাংসদ রাধেশ্যাম বিশ্বাস, কংগ্রেস নেতা তথা বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থরা টায়ার জ্বালিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন পুলিশ সুপারের কার্যালয় থেকে প্রায় ১০০ মিটির দূরে রাস্তায়। প্রতিবাদী কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে তাঁরা সরকার-বিরোধী স্লোগানও দিয়েছেন। বরাক উপত্যকা থেকে নির্বাচিত বাঙালি বিধায়ক তথা রাজ্যের মন্ত্ৰী পরিমল শুক্লবৈদ্য বাঙালি নিধনের পর কোনও প্ৰতিক্ৰিয়া ব্যক্ত করেননি বলে ক্ষোভ প্ৰকাশ করেছেন সাংসদ রাধেশ্যাম। একইভাবে বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থও মন্ত্ৰী পরিমল শুক্লবৈদ্যের বিরুদ্ধে একরাশ ক্ষোভ জাহির করেছেন।
অন্যদিকে বজরং দলের নেতা-কর্মীরা আলফা স্বাধীনের সর্বেসর্বা পরেশ বরুয়ার কুশপুতল জ্বালিয়ে উগ্রপন্থী সংগঠনের বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়েছেন। মৌলবাদী সংগঠনের সঙ্গে জোট বেঁধে আলফা-স্বাধীন এ ধরনের নরসংহারে মত্ত হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছে বজরং দল। বিজেপি যুব মোৰ্চাও গণহত্যার তীব্ৰ নিন্দা জানিয়ে পরেশ বরুয়ার কুশপুতুল দাহ করেছে।

আজ সন্ধ্যার পর বিভিন্ন দল ও সংগঠনের পক্ষ থেকে মশাল মিছিল কাঁপিয়েছে করিমগঞ্জ শহর| এতে অংশগ্রহণ করেছেন কংগ্ৰেস, এআইইউডিএফ, বাঙালি ঐক্যমঞ্চের অসংখ্য নেতা, কর্মী, সদস্য এবং সমর্থক। মশাল মিছিলের নেতৃত্ব দিয়েছেন সংসদ রাধেশ্যাম বিশ্বাস, বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থ প্রমুখ| পৃথক পৃথক মশাল মিছিল বের করেছে বিজেপি, বজরং দলও|


এদিকে আগামীকাল বরাক উপত্যার তিন জেলায় ১২ ঘণ্টার বনধ ডেকেছে কংগ্ৰেস,, বাঙালি ঐক্যমঞ্চ, রাষ্ট্ৰবাদী ঐক্যমঞ্চ প্রভৃতি বেশ কয়েকটি সংগঠন| তছাড়া আরও কয়েকটি সংগঠন আগামীকালের বনধকে সমৰ্থন জানিয়েছে বলে জানা গেছে| অন্যদিকে বনধ-এর পরিপ্রেক্ষিতে আগামীকাল অনুষ্ঠেয় গুণোৎসবের দিন পরিবর্তন করা হয়েছে। শনিবারের পরিবর্তে আগামী সোমবার ৫ নভেম্বর করিমগঞ্জে গুণোৎসব অনুষ্ঠিত হবে বলে সরকারি বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।
 তিনসুকিয়ার শদিয়ার সৈখোয়ায় ধলা এলাকার খেরবাড়ি বিছনিগাঁওয়ে পাঁচ নিরীহ হিন্দু বাঙালিকে আইসিস-এর কায়দায় শূন্য দূরত্ব থেকে নির্মমভবে গুলি করে মারার প্রতিবাদে শুক্রবার সন্ধ্যায় উত্তাল হয়ে ওঠেন পাথারকান্দি জনগণ।

আজ সন্ধ্যায় বৃহত্তর পাথারকান্দি নাগরিক মঞ্চের ডা‌কে এক মশাল মিছিল বের করা হয়। এতে স্বতঃস্ফুর্তভা‌বে রাজনৈতিক, অরাজনৈতিক ও বিভিন্ন সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সকল স্তরের কর্মী-সদস্য-সমর্থক যোগ দি‌য়ে ন্যাক্কারজনক এই ঘটনার নিন্দা জানান। প্রত্যেকে বুকে কালো ব্যাজ ধারণ করে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা নাগাদ মিছিল বের করেন স্থানীয় রবীন্দ্রভবন প্রাঙ্গণ থেকে। মিছিল শহরের বিভিন্ন সড়ক পরিক্রমা করে ফের রবীন্দ্রভবনের সামনে এসে শেষ হয়।


মিছিলে সমা‌জের বি‌ভিন্ন স্তরের নাগরিক নৃশংস এই ঘটনার বিরুদ্ধে গর্জে ওঠে নানা প্রতিবাদী স্লোগানে আকাশবাতাস কাঁপিয়ে তুলেন। পরে এ ব্যাপেরে অনুষ্ঠিত এক প্রতিবাদী সভায় বরাক উপত্যকা বঙ্গ সাহিত্য সংস্কৃতি সম্মেলন পাথারকান্দি শাখার সভাপতি টিঙ্কু গুপ্ত তাঁর বক্তব্যে এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানান। তিনি অসমের জনগণের নিরাপত্তার প্রশ্নে বর্তমান সরকারের চূড়ান্ত খামখেয়ালিপনার অভিযোগ তুলে বক্তব্য পেশ করেছেন। সভায় বৃহত্তর পাথারকান্দি নাগরিক মঞ্চের নেতা শচীন সাহু অবিলম্বে এই গণহত্যার বিরুদ্ধে সরকারকে বিহিত ব্যবস্থা গ্রহণের আর্জি জানান।

মঞ্চের অন্য নেতা প্রতাপ সিনহা ধলায় সংঘ‌টিত গণহত্যার প্র‌তিবা‌দে আগামীকালের ১২ ঘণ্টা বরাক বনধ-কে সর্বাত্মক করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন। সভার অন্য বক্তা বিশিষ্ট সমাজসেবিকা গীতা দাস এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, বেছে বেছে বাঙালি-হত্যা সহ্য করা যাবে না। এখনই শক্ত হাতে এর মোকাবিলা করার ডাক দিয়েছেন তিনি।
তিনসুকিয়ার ধলা শদিয়ায় বৃহস্পতিবার রাতে সন্দেহভাজন জঙ্গিরা যে নরসংহার চালিয়েছে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন এআইসিসি সাধারণ সম্পাদক হরিশ রাওয়াত। আজ হাফলঙে এসে হরিশ গতকাল রাতে সংঘটিত ঘটনার তীব্র নিন্দা জানানোর পাশাপাশি এ ঘটনার জন্য বিজেপি সরকারকে দায়ী করেছেন।

এআইসিসির সাধারণ সম্পাদক হরিশ রাওয়াত বলেন, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল নিয়ে বিজেপি বিভাজনের রাজনীতি শুরু করেছে। হাফলঙে শুক্রবার হরিশ রাওয়াত সাংবাদিকদের বলেন, অসম প্রদেশ কংগ্রেসের এক প্রতিনিধি দল আজ তিনসুকিয়ার ধলা-শদিয়া তথা ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে বৃহস্পতিবার রাতে সন্দেহভাজন জঙ্গির গুলিতে নিহতদের পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে গভীর সমবেদনা জানিয়েছে।
এদিকে অসম প্রদেশ কংগ্রেস কমিটির সভাপতি রিপুন বরা বৃহস্পতিবার রাতে সংঘটিত নরসংহারে সঙ্গে সরকারের হাত থাকতে পারে বলে সন্দেহ প্রকাশ করেছেন। গতকাল রাতের এই নারকীয় ঘটনার তীব্র ভাষায় নিন্দা জানিয়ে এর উচ্চপর্যায়ের তদন্তের পাশাপাশি নরহত্যার সঙ্গে জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান করার দাবি তুলেছেন রিপুন বরা। এছাড়া নিহতদের পরিবারবর্গকে উপযুক্ত ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবিও জানান প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি রিপুন।

অসম প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সাংবাদিকদের আরও বলেন, এই ঘটনার পর আজ কেন আলোচনাপন্থী আলফা নেতা মৃণাল হাজরিকা এবং জীতেন দত্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের আরও আগেই গ্রেফতার করা উচিত ছিল সরকারের। এছাড়া বিজেপির সে সকল নেতা ও বিধায়ক উস্কানিমূলক মন্তব্য করে পুরো রাজ্যকে অশান্ত করে তুলতে চাইছেন তাঁদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা উচিত বলে মনে করেন রিপুন বরা। তিনি রাজ্যের সর্বস্তরের মানুষকে যে কোনও অবস্থায় শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখার আহ্বান জানান।

 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.