Facebook Google Plus Twiter YouTube
   
শুধুমাত্র নম্বর দিয়েই যোগ্যতা যাচাই করা যায় না, মনে করে সিপিএম ত্রিপুরা রাজ্য কমিটি
দেবাশিস মজুমদার, আগরতলা , 03/04/2017, Agartala

সিপিএমের রাজ্য কমিটির বৈঠকে অনিবার্য ভাবেই উঠে এলো ১০,৩২৩ শিক্ষকের চাকরিচ্যুতির ঘটনা। তবে এ ব্যাপারে দলের অবস্থান- ভাঙবো কিন্তু মচকাবো না. প্রথমে হাই কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ ও পরে সুপ্রিম কোর্টের ডিভিশন বেঞ্চ। দুই আদালতেই চাকরি মামলায় রাজ্য সরকারকে খালি হাতে ফিরতে হয়েছে। উভয় আদালতের বক্তব্য- শিক্ষক নিযুক্তির ক্ষেত্রে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। কিন্তু রাজ্য সরকারের বক্তব্য- সবকিছু ঠিক ছিল. শাসক দল সিপিএম অবশ্য আরো কয়েক ধাপ এগিয়ে বলেছে- কোর্টের রায় 'অমানবিক '. তাত্পর্যপূর্ণভাবে দলের রাজ্য কমিটির বৈঠকেও এদিন আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে সিপিএম। 'এই সময়ের ' অনুমানকে সত্য করে যথারীতি এই ঘটনার দায় চাপানো হয়েছে বর্তমান তৃণমূল বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মনের ঘাড়ে।

 

রাজ্য কমিটির দুইদিনের বৈঠকে অনিবার্য ভাবেই যে শিক্ষক মামলা উঠবে তা আর বলার অপেক্ষা ছিল না. হলো ও তাই. বৈঠকের পর রাজ্য সম্পাদক বিজন ধর ও সম্পাদকমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য গৌতম দাস এসেছিলেন সাংবাদিক সম্মেলনে। যথারীতি বক্তব্যের সিংহ ভাগ সময় ব্যয় করেছেন এই ইসু নিয়ে আলোচনা করেই। এদিন শিক্ষক মামলা ইস্যুতে আদালতের অবস্থানের বিরুদ্ধে দলের অবস্থান স্পষ্ট করতে গিয়ে সিপিএম রাজ্য সম্পাদক যা বলেছেন তা যথেষ্ট বিতর্কিত বলা যায়. কেননা কম নম্বর প্রাপ্ত শিক্ষকদের পাশে রাজনৈতিক অবস্থান নিতে গিয়ে সিপিএম ত্রিপুরা রাজ্য কমিটি বলেছে- 'শুধুমাত্র নম্বর দিয়ে যোগ্যতা যাচাই করা যায় না'. এ ব্যাপারে সিপিএম যে স্বল্প যোগ্যতাসম্পন্ন বেকারদের পক্ষে শ্রেণীদৃষ্টিভঙ্গিগত অবস্থান নিয়েছে তাও এদিন স্পষ্ট করে দিয়েছেন মেলারমাঠের নেতারা। দলের রাজ্য সম্পাদক বলেছেন- অনেকেই আছেন যারা নম্বর কম পান. তার কারণ তাঁরা নিজেদের প্রকাশ করতে পারেন না. তাই বলে যারা নম্বর পায়নি রাষ্ট্র তাঁদের চাকরির সুবিধা করে দেবে না ? এই  প্রশ্ন তুলেন তিনি।

 

বলাবাহুল্য যে, যদি তাই হয় তবে গত কয়েক দশক ধরে ইন্টারভিউর নামে কেন ত্রিপুরায় লক্ষ লক্ষ বেকারকে হয়রানি করানো হচ্ছে এই প্রশ্ন উঠাই স্বাভাবিক। এই ঘটনায় বেকারদের হয়ে পেছনের দরজা দিয়ে তৃণমূল বিধায়ক সুদীপ রায় বর্মন যে সহযোগিতা করে এসেছেন তা ও নাম উল্লেখ না করে বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি। এই সমস্থ বিরোধী নেতাদের বেকার বিরোধী অবস্থান পরবর্তী সময়ে ধারাবাহিক ভাবে উন্মোচিত করা হবে বলে সাংবাদিক সম্মেলনে ঘোষণা করেছেন সিপিএম রাজ্য সম্পাদক বিজন ধর.

 

দলের রাজ্য কমিটির বৈঠকে অন্য যে ইস্যুটি নিয়ে সদস্যরা সবচেয়ে বেশি উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সেটি হলো ত্রিপুরায় বিজেপির উত্থান। কেন্দ্রের শাসক দলকে আক্রমণ করতে গিয়ে শ্রী ধর বলেন, রাজ্যের অবাম দলগুলিকে ভেঙে তাদের গ্রাস করতে চাইছে বিজেপি। নানাভাবে জনগণকেও প্রলুব্ধ করার চেষ্টা করছে। বিজেপিকে 'কর্পোরেট কমিউনাল ' বলেও এদিন আক্রমণ শানিয়েছেন সিপিএমের রাজ্য নেতৃত্ব।

 

 

 
Accessibility | Copyright | Disclaimer | Hyperlinking | Privacy | Terms and Conditions | Feedback | E-paper | Citizen Service
 
© aajkeronlinekagaj, Agartala 799 001, Tripura, INDIA.